১৮ ডিসেম্বর, ২০২০

কাস্টমসের ২০ কেজি স্বর্ণ চুরি: আরেক সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা গ্রেফতার

 


বেনাপোল কাস্টমস হাউসের ভোল্ট ভেঙে প্রায় ২০ কেজি স্বর্ণ চুরি মামলায় ঢাকা থেকে গ্রেফতার হয়েছেন কাস্টমসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা বিশ্বনাথ কুণ্ডু। সিআইডি ঢাকা জোনের কর্মকর্তারা গত সোমবার রাতে তাকে ঢাকার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করেন। এর আগে বিশ্বনাথ কুণ্ডু বেনাপোলে ওই একই পদে কর্মরত ছিলেন।২০১৯ সালের ৭ নভেম্বরের রাত ৮টা থেকে ১১ নভেম্বর সকাল ৮টার মধ্যে যে কোনো সময় বেনাপোল কাস্টমস হাউজের পুরাতন ভবনের দ্বিতীয় তলার গোডাউনের তালা ভেঙ্গে ফাইল ক্যাবিনেট খুলে ১৯ কেজি ৩১৮ দশমিক ৩ গ্রাম স্বর্ণ চুরি হয়। যার মূল্য ১০ কোটি ৪৩ লাখ ১৭ হাজার ৩৬২ টাকা।

এই লকারের চাবি কাস্টমসের বর্তমান সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা শাহিবুল সরদারের কাছে থাকত। চুরি হওয়া লকারের তালা অক্ষত ছিল। এছাড়া ওই লকারের তৃতীয় ড্রয়ারে আরও ৭ কেজি স্বর্ণ অক্ষত ছিল। ওই গোডাউনে আরেক আলমারিতেও প্রায় চার কোটি টাকার বিভিন্ন মূল্যবান জিনিষপত্র ছিল। সেগুলোও ছিল অক্ষত। চুরির সময় সিসি ক্যামেরাও বন্ধ ছিল।

এসব বিষয় বিবেচনায় প্রথমে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা শাহিবুলকে সাময়িক বরখাস্ত করে। এরপর পুলিশ তাকে এ মামলায় আটক করে। তিনি রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার বাঁধুলি খালপাড়ার মৃত জালাল সরদারের ছেলে। এরপর সিআইডি পুলিশ যশোরের পরিদর্শক সিরাজুল ইসলাম তাকে রিমান্ডে নিলে তিনি চুরি সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেন ও আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।

তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে সিআইডি ঢাকা জোনের কর্মকর্তারা ঢাকা কাস্টমস রাজস্ব অফিসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা বিশ্বনাথ কুণ্ডুর বাড়ি থেকে আটক করেন। তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সোমবার রাতে যশোরের উদ্দেশ্যে পাঠানো হয়।

গত মঙ্গলবার তাকে সিআইডি যশোর জোনের কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। তিনি দুই বছর আগে বেনাপোল কাস্টমস হাউজের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

এ বিষয়ে সিআইডি যশোর জোনের পুলিশ সুপার জাকির হোসেন বলেন, বেনাপোল কাস্টমসের বিপুল পরিমাণ স্বর্ণ চুরির মামলাটি তারা গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করছেন। ইতোমধ্যে তারা চুরির রহস্য ভেদ করতে পেরেছেন। দ্রুতই প্রকৃত আসামিরা শনাক্ত হবেন। আটক বিশ্বনাথ কুণ্ডুকে বুধবার আদালতে সোপর্দ করা হবে।



SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: