২৩ জুন, ২০১৮

যশোরে ‘বিশ্ব বাবা দিবস’ উদযাপিত,



যশোরে তৃতীয়বারের মত সাড়ম্বরে ‘বিশ্ব বাবা দিবস উদযাপিত হয়েছে। শুক্রবার দিনব্যাপী অনুষ্ঠানে তিন সার্থক বাবাকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।এ দিবস উদযাপনে কর্মসূচির মধ্যে ছিল শিশুদের চিত্রাংকন ও বাবার কাছে খোলা চিঠি লেখা প্রতিযোগিতা, বাবা ও সন্তানের আড্ডা, অনুভূতিতে বাবা শীর্ষক আলোচনাসভা, বাবাদের সংবর্ধনা ও সম্মাননা প্রদান এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানঅনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ পাঠ ও সূচনা বক্তব্য রাখেন সদস্য সচিব প্রণব দাস। ‘পর্ষদ’র আহ্বায়ক তারাপদ দাসের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল আওয়াল। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কলামিস্ট আমিরুল ইসলাম রন্টু, প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ডিএম শাহিদুজ্জামান, যশোর সংবাদপত্র পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মবিনুল ইসলাম মবিন ও যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। সম্মানিত বাবাদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন অসুস্থতার কারণে আসতে না পারা সার্থক বাবা ডাঃ কাজী রবিউল হক’র ছেলে কাজী কলাম লেখক ও সমাজসেবক সফল ব্যবসায়ী কাজী বর্ণ উত্তম।
শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন বিশ্ব মা দিবস উদযাপন পর্ষদ যশোরের সদস্য সচিব রওশন আরা রাসু। বাবার প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন সংস্কৃত জন দীপংকর দাস রতন।
অনুষ্ঠানে পুনশ্চ যশোরের শিল্পীবৃন্দ জাতীয় সংগীত পরিবেশন করেন। উদ্বোধনী সংগীতে বিশ্ব কবি রবী ঠাকুরের গান ‘আজি শুভ দিনে পিতার ভবনে অমৃত সদনে চলো যাই…’ পরিবেশন করেন উদীচী যশোরের শিল্পীবৃন্দ। বাবাকে নিয়ে একক সংগীত পরিবেশন করে সুরধুনী’র শিল্পী তরিকুল ইসলাম, চাঁদেরহাট যশোরের শিল্পী সরজিৎ মন্ডল, উদীচী যশোরের শিল্পী সুব্রত দাস, পুনশ্চ যশোরের টুটুল বিশ্বাস, তির্যক যশোরের অমিতাভ দাস। সমবেত সংগীত পরিবেশন করেন শেকড় যশোরের শিল্পীবৃন্দ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে আব্দুল আওয়াল বলেন, ‘বাবা নির্ভরতা ও আস্থার প্রতীক। সন্তানের সাথে বাবার স্পর্শ যতো গাঢ় হবে, পারিবারিক বন্ধন ততো বাড়বে। আর পারিবারিক বন্ধন যতো দৃঢ় হবে, সমাজ থেকে অপরাধ প্রবণতা ততো কমবে। বাবা দিবসে সন্তন ও বাবাদের এই সমাবেশ আত্মার সম্পর্ককে আরও শক্ত করে তুলবে বলে আমার বিশ্বাস।’ সমগ্র অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা সাধন কুমার দাস।
অনুষ্ঠানে বাবাকে উৎসর্গ করে ‘অনুভূতিতে বাবা’ প্রকাশ পর্বে চিত্রাংকন ও চিঠি লেখা প্রতিযোগিতায় তিন বিভাগে ১২ জনকে স্মারক উপহারসহ পুরস্কৃত করা হয়। এছাড়া অংশগ্রহণকারী ২৪ শিশুকে স্মারক উপহার প্রদান করা হয়।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: