৫ ডিসেম্বর, ২০১৭

২০-২৩ ডিসেম্বর যশোর জিলা স্কুলের ১৮০ বছর পূর্তি উৎসব

ঐতিহ্যবাহী যশোর জিলা স্কুলের ১৮০ বছর পূর্তিতে প্রাক্তন ছাত্রদের পুনর্মিলনী উৎসবের আয়োজন করা হচ্ছে। যশোর জিলা স্কুল প্রাক্তন ছাত্র সমিতির আয়োজনে ২২ ও ২৩ ডিসেম্বর স্কুল প্রাঙ্গণে বসছে দুই দিনের মিলনমেলা।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে প্রাক্তন ছাত্র সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও উদ্‌যাপন পরিষদের আহ্বায়ক এ জেড এম সালেক লিখিত বক্তব্যে বলেন, ব্রিটিশ-ভারতের প্রাচীনতম বিদ্যাপীঠ ঐতিহ্যবাহী যশোর জিলা স্কুল প্রতিষ্ঠার ১৮০ বছর পূর্ণ হতে যাচ্ছে। এ উপলক্ষে ২২ ও ২৩ ডিসেম্বর প্রাক্তন ছাত্র সমিতি দুই দিনব্যাপী পুনর্মিলনী উৎসবের আয়োজন করেছে।

কর্মসূচির মধ্যে থাকছে র‌্যালি, আলোচনা, স্মৃতিচারণা, শিক্ষক সম্মাননা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, গ্রান্ড কনসার্ট, ডিজে, ফায়ার ওয়ার্কার্স, লেজার লাইট শো, আলোকসজ্জা, ওয়াটার ড্যান্স, ওয়াই-ফাই জোন, রক্তদানসহ আরও ব্যতিক্রমী নানা অনুষ্ঠান।

এরই মধ্যে ছাত্রমিলন উৎসবে যোগ দেওয়ার জন্য স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য এম শমসের আলী, সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম, সাবেক মন্ত্রী খালেদুর রহমান, সাবেক সচিব তসলিমুর রহমান, সাবেক সচিব মনিরুজ্জামান, অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল জামিল ডি আহসান, ব্রিগেডিয়ার শহীদ আহমেদ, গীতিকার রফিকুজ্জামান, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ এম জাকারিয়া মিলন, অভিনেতা আজিজুল হাকিম ও সালাউদ্দিন লাভলু, জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক খেলোয়াড় কওসার আলী, বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের তুষার ইমরানসহ প্রায় এক হাজার প্রাক্তন ছাত্র নাম নিবন্ধন করেছেন।

এ জেড এম সালেক আরও জানান, ‘নবীন প্রবীণ এক প্রাণ’ স্লোগানে উজ্জীবিত হয়ে প্রথম ২০০৫ সালে প্রাক্তন ছাত্র পুনর্মিলনীর আয়োজন করা হয়। এরপর ২০১০ ও ২০১৪ সালে স্কুল প্রাঙ্গণে পুনর্মিলনী উৎসব উদ্‌যাপিত হয়েছে। এবার ১৮০ বছর পূর্তির এ উৎসবে দেশ-বিদেশের প্রায় দুই হাজার প্রাক্তন ছাত্র ছাড়াও তাঁদের পরিবার অংশ নেবে। নিবন্ধন চলবে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন ছাত্র সমিতির সভাপতি প্রফেসর তসদিকুর রহমান, সহসভাপতি ইয়াসিন আলী ও শরিফুল আলম, সমিতির নেতা নিয়াজ মোহাম্মদ, ফখরে আলম, আনিছুর রহমান, শাহীন চৌধুরী, এস এম তৌহিদুর রহমান, মাহমুদ রিবন প্রমুখ।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: