২ অক্টোবর, ২০১৭

যশোরে নির্দিষ্ট বয়সের পর সকলকে সিনিয়র সিটিজেন ঘোষণা করার দাবি

‘আগামীর পথে; প্রবীণের সাথে’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে যশোরেও যথাযোগ্য মর্যদায় উদযাপিত হয়েছে আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস। ‘নির্দিষ্ট বয়সের পর সকলকে সিনিয়র সিটিজেন ঘোষণা করতে হবে’ এমন দাবিকে সামনে রেখে বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের মধ্য দিয়ে রোববার যশোরে দিবসটি উদযাপন করা হয়। বাংলাদেশ প্রবীণ হিতৈষী সংঘ যশোর জেলা কমিটির উদ্যোগে এ দিবসে কর্মসূচির মধ্যে ছিল প্রবীণ সমাবেশ, বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা। একইসাথে আনুষ্ঠানিকভাবে মমতাময় ও মমতাময়ী দুই সন্তানকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। এদিন সকালে কালেক্টরেট চত্ত্বরে প্রবীণ সমাবেশ শেষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক আশরাফ উদ্দীন। বাদ্যের তালে তালে দু’শতাধিক প্রবীণ ব্যক্তিত্বের স্বতঃস্ফূর্ত অংশ গ্রহনে শোভাযাত্রাটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার কালেক্টরেট চত্ত্বরে এসে শেষ হয়। এরপর জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে এ দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘আগামীর পথে; প্রবীণের সাথে শীর্ষক আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ প্রবীণ হিতৈষী সংঘের যশোর জেলা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব সৈয়দ এরশাদুল করিম। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক আশরাফ উদ্দীন বলেন, প্রবীণরাই সমাজ বিনির্মানের অগ্রপথিক। দেশের প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ প্রবীণ জনগোষ্ঠীকে অবহেলা করে আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন দুরূহ ব্যাপার। তাই সার্বিক উন্নয়নে প্রবীনদের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে সকলকে সমৃদ্ধ হতে হবে। সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন যশোর জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের সহকারী আসাদুল ইসলাম ও প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হানান টুকুন। স্বাগত বক্তব্য দেন সংঘের জেলা সাধারণ সম্পাদক আতাহার রহমান। আলোচনা করেন প্রবীণ হিতৈষী সংঘের যশোর জেলা কমিটির সহসভাপতি নাদুর হোসেন বিশ্বাস, ডক্টর মুস্তাফিজুর রহমান ও অধ্যাপক মশিউল আযম। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন আক্তারুজ্জামান শিকদার। অনুষ্ঠানে মমতাময়ী সন্তান হিসেবে চাচড়ার মাহবুবা খানম ও মমতাময় সন্তান হিসেবে হাজী ইকবাল হোসেনকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়। উল্লেখ্য, ১৯৯০ সালের ১৪ ডিসেম্বর জাতিসংঘ প্রবীণদের কথা চিন্তা করে ‘আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস’ পালনের সিদ্ধান্ত নেয়। তারই ধারাবাহিকতায় ১৯৯১ সাল থেকে বিশ্বের অন্যান্য দেশের সাথে বাংলাদেশেও ১ অক্টোবর এ দিবস উদযাপিত হয়ে আসছে।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: