৪ জুন, ২০১৭

মোরা’য় ৪৫ জেলে নিখোঁজ, স্বজনদের আহাজারি (ভিডিও)

বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে গিয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’র কবলে পড়ে নিখোঁজ হওয়া কক্সবাজারের মহেশখালীর ৪৫ জেলে পরিবারে শোকের মাতম চলছে। মোরার কবলে পড়ে মহেশখালীর পুটিবিলা এলাকার চার ট্রলারডুবিতে ৪৫ জেলে নিখোঁজ হন। পুটিবিলার প্রতিটি ঘরে স্বজন হারানোর আহাজারি চলছে।
এ গ্রামে একই পরিবারে পিতার সঙ্গে পুত্র, নানার সঙ্গে নাতি, মামার সঙ্গে ভাগিনা, ভাইয়ের সাথে ভাই, শ্বশুরের সঙ্গে জামাইসহ একই পরিবারে ৩/৪ জন করে জেলে নিখোঁজ রয়েছেন।
নিখোঁজের স্বজনরা জানিয়েছে ওই জেলেরা ২৪ ও ২৫ মে সাগরে মাছ ধরতে যান। পুটিবিলা এলাকার মরহুম মোহাম্মদ আলী পুত্র স্থানীয় পৌর কাউন্সিল আব্দুল শুক্কুর এর মালিকানাধীন এফ.বি সায়েদ, এফ.বি ওয়ালিদ-১, এফ.বি ওয়ালিদ-২, ও একই এলাকার হাজি মোশারফ আলী পাড়া গ্রামের নুরুল আলম প্রকাশ বাঁশি মাঝির মালিকানাধীন এফবি গাউছিয়া নামক ৪টি ফিশিং ট্রলার প্রায় ৮২ জন মাঝি মাল্লা নিয়ে সাগরে যান।
২৯ মে প্রাকৃতিক ঘুর্ণিঝড় ‘মোরা’র সিগন্যালের পর অসতর্কতার কারণে ৩০ মে ভোর রাতে ‘মোরা’র কবলে পড়ে চারটি ফিশিং ট্রলার সাগরে ডুবে যায়। এ সময় ৪টি ফিশিং ট্রলারে থাকা ৮২ জন মাঝিমাল্লা সাগরে ভেসে বেড়াচ্ছিলে। ১ জুন ভারত থেকে বাংলাদেশে ত্রাণবাহী নৌ-জাহাজ সুমিত্রা ৩৩ জন জেলেকে সাগর থেকে ভাসমান অবস্থায় উদ্ধার করে।
পরে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করে। উদ্ধার হওয়াদের মধ্যে আবু সিদ্দিক নামে এক জেলে ‍মৃত্যুবরণ করেন।
অপরদিকে টেকনাফের অদূরে বাংলাদেশ নৌ-বাহিনীর সদস্যরা হাবিব উল্লাহ, নিয়ামত উল্লাহ, আবু বক্কর ও আব্দু ছালামসহ ২০ জনকে ২ জুন উদ্ধার করে। এখনো ৪৫ জেলে সাগরে নিখোঁজ রয়েছেন। নিখোঁজ জেলেদের বিষয়ে মহেশখালী থানায় ১২১০ নং/১৭ ইং ও ৬২/১৭ নং মূলে পৃথক দুটি ডায়েরি করেন ট্রলার মালিক।
অনেক নিখোঁজ মাঝি-মাল্লার বাড়িঘর বাতাসে ভেঙে গেলেও এখনো প্রশাসন বা স্থানীয় পৌর পরিষদ থেকে কোনো ত্রাণ সামগ্রী পাননি বলে ভুক্তভোগী জেলে পরিবারের অভিযোগ।
একই গ্রামে ৪৫ জন নিখোঁজ হওয়ায় এলাকায় কান্নার রোল পড়েছে। তাকানো যাচ্ছে না বিধবা ও ছেলে হারা মায়েদের দিকে। নিখোঁজ জেলেরা হলেন পুটিবিলা এলাকার আমানুল করিম, ইয়াছিন, নুরুল হোসেন, খলিল আহাম্মদ, কবির, আহাম্মদ শাহাব মিয়া, গোলাম হোছন, শহিদুল্লাহ, মোক্তার, আরফাত, মো. জহির, মামুন, মমতাজ বাবুর্চি, শুক্কুর, আমান উল্লাহ, ফরিদুল আলম, মিজান, নজরুল ইসলাম, আমান উল্লাহ, এহেচান, মীর কাশেম, সার্জান, সোহেল, এমরান, জাবের, আনছার ড্রাইভার, বেলাল, সাবাহ, উদ্দিন, নুরুল আহমদ, খুশিল্যা, মলই, নুরুল হোছন, রফিক, কালুয়া মাঝি, আজাদ, শামসুল, এয়াদেত উল্লাহ, ছৈয়দ উল্লাহ, জাবেদ উল্লাহ, ফজল করিম, শহিদুল্লাহ, ইছাহাক, জনি, আলতাজ, মোতালেব, আবু হামিদ, খাইরুল আমিন।
এ ব্যাপারে মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আবুল কালাম জানান, নিখোঁজ জেলেদের উদ্ধারে কোস্টগার্ডের উদ্ধার অভিযান চলমান রয়েছে। স্থানীয় চেয়ারম্যান ও মেয়র তালিকা প্রদান করলে পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: