২৮ এপ্রিল, ২০১৭

বাংলাদেশের সম্মাননা ‘ফেরত’ দিচ্ছেন হামিদ মীর




মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশে বিদেশি বন্ধু হিসেবে সম্মাননা পেয়েছিলেন পাকিস্তানি ওয়ারিস মীর, তা ফিরিয়ে দিতে চেয়েছেন তার ছেলে সাংবাদিক হামিদ মীর। বাংলাদেশ-পাকিস্তান সম্পর্কের টানাপড়েনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দায়ী করে তিনি বলেছেন, বাবার ওই সম্মাননাকে তার ‘ধোঁকা’ বলে মনে হচ্ছে।
বৃহস্পতিবার জিও নিউজের নিয়মিত শো ‘ক্যাপিটাল টকে’হামিদ বলেন, “২০১৩ সালে আমাদের বলা হয়েছিল পাকিস্তানের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক ভালো করার জন্য পাকিস্তানের কিছু মুরুব্বিকে বাংলাদেশ সরকার অ্যাওয়ার্ড দেবে। ১৯৭১ সালে যারা বাংলাদেশে পাকিস্তানি সামরিক অপারেশনের বিরোধিতা করেছিলেন তাদের এই অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়। যার মধ্যে আমার বাবাও ছিলেন।”
হামিদ মীর বলেন, সে সময় ১৩ জন পাকিস্তানি ওই ‘দাওয়াত’গ্রহণ করেছিলেন। আমি সেখানে গিয়ে বাবার পক্ষে অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করেছিলাম। কিন্তু এরপরে দেখলাম, হাসিনা সম্পর্ক ভালো করার জায়গায় আরও খারাপ করলেন।
সংবাদপত্রের স্বাধীনতার পক্ষে ভূমিকা রাখার জন্য পাকিস্তান সরকারের দেওয়া সর্বোচ্চ বেসামরিক পদক গ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ না দিয়ে ২০১৩ সালের মার্চে বাবার সম্মাননা নিতে ঢাকায় এসেছিলেন হামিদ মীর। সে সময় বাংলাদেশের সাংবাদিকদের তিনি বলেছিলেন, পাকিস্তানেও একদিন একাত্তরের যুদ্ধাপরাধের বিচার হবে।
উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের পক্ষে দাঁড়ানো ৬৯ জন বিদেশি বন্ধুকে ২০১৩ সালের মার্চ মাসে সম্মাননা দেয় সরকার। তার মধ্যে ওয়ারিস মীরসহ ১৩ জন ছিলেন পাকিস্তানি। পাকিস্তানের জিও নিউজের শো হোস্ট হামিদ মীর বাবার পক্ষে সেই সম্মাননা স্মারক গ্রহণ করেন সে সময়। একাত্তরের ২৫ মার্চ রাতের গণহত্যার ভয়াবহতা দেখতে একদল ছাত্র নিয়ে পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশে এসেছিলেন প্রয়াত অধ্যাপক ও সাংবাদিক ওয়ারিস মীর। সে সময় পাক বাহিনীর নির্মমতা নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেন দৈনিক জং পত্রিকায়।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: