৭ এপ্রিল, ২০১৭

মাশরাফির ‘হ্যাঁ’, পাপনের ‘না’ নিয়ে বিভ্রান্তি



মাশরাফি বিন মর্তুজা বলছেন আন্তর্জাতিক টি-টুয়েন্টি থেকে তিনি অবসর নিয়েছেন। আবার বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলছেন, ‘না, মাশরাফি শুধু অধিনায়কত্ব ছেড়েছেন। অবসর নেননি।’দলের সঙ্গেই শ্রীলঙ্কা থেকে দেশে ফিরেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। বিমানবন্দরে সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘আমি একটা কথা বারবারই বলছি মাশরাফি কিন্তু টি-টুয়েন্টি এখনও ছাড়েনি। আমরা এখনও বলিনি সে স্কোয়াডে নেই। ও অধিনায়কত্ব ছেড়েছে। আমরা তিনটা ফরম্যাটে তিনজনকে অধিনায়ক করতে চাই। সেটা আমি আগেই বলেছি। ও যদি ফিট থাকে খেলবে। যদি বলে খেলতে চাই না, আর তাকে টিমে যদি দরকার হয়, তাহলে কি ছেড়ে দিব?’
মাশরাফির অবসর নিয়ে পাপনের মুখ থেকে এমন ‘না’ উচ্চারিত হলেও মাশরাফি স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন তিনি আর টি-টুয়েন্টি খেলবেন না। এমনকি নিজের ফেসবুক পেজে বিবৃতি দিয়ে বলে দেন, এই অবসর তরুণ ক্রিকেটারদের জায়গা দিতে।
‘মুশফিক তিন ফরম্যাটের ক্যাপ্টেন ছিল, দুই ফরম্যাট থেকে চলে গেছে তার মানে কি ও দল থেকে বিদায় নিয়েছে?’ নিজের বক্তব্য প্রতিষ্ঠিত করতে নাজমুলের যুক্তি।
মাশরাফির প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘একটা জিনিস মনে রাখতে হবে মাশরফি শুধু একজন প্লেয়ারই নন, ও দলের জন্য এমন একজন দরকারি খেলোয়াড় যাকে দলের প্রয়োজন ছিল। গুরুত্বপূর্ণ সময়ে যখন পারফর্ম করা দরকার, তখন করেছে। যখন মাশরাফিকে অধিনায়ক করা হয়, তখন ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টি স্কোয়াডেই ছিল না। ও তখন ইনজুরিতে। ওকে যখন অধিনায়ক বানানো হয়েছে, তখন নিশ্চয়ই একটা বিশেষ কথা চিন্তা করে করা হয়েছিল এবং সেই রোলটা সে সার্থকভাবে করেছে। সেজন্য ওর পাশাপাশি আমরাও গর্বিত।’
নাজমুল হাসানের দাবি মাশরাফি মোটেও ক্ষোভ নিয়ে অধিনায়কত্ব ছাড়েননি, ‘সবাই বলছে মাশরাফি ক্ষোভ নিয়ে বিদায় নিচ্ছে। আপনাদের কী মূল্যায়ন? বাংলাদেশ ছাড়া অন্য কোন দেশের টি-টুয়েন্টি থেকে কে রিটায়ার্ড করল, কে গেল এইটা নিয়ে কোনদিন কোন জায়গায় নিউজ দেখেনি। শুধু বাংলাদেশেই এত হুলস্থূল দেখছি। যেকোনো দেশে ওডিআই নিয়ে কথা হয়, টেস্ট নিয়ে হয়, কিন্তু টি-টুয়েন্টি নিয়ে এত আলোচনা হয় না।’
মাশরাফির ক্ষোভ না থাকলেও কষ্ট থাকতে পারে বলে মনে করেন নাজমুল, ‘মাশরাফির মনে কষ্ট না থাকার কোন কারণ নেই। কারণ ও একজন খেলোয়াড়।’
এই কথা বলার পর মাশরাফির অবসর নিয়ে আবার উল্টো কথা বলেন বোর্ড প্রধান, ‘ও শুধু খেলোয়াড়ই নয় ও দলটাকে নেতৃত্ব দিয়ে আসছে। তাছাড়া খেলা থেকে অবসরে যাচ্ছে। সেজন্য খারাপ লাগতেই পারে। এটা অস্বাভাবিক কিছু না। আমার হলেও লাগত।’
শ্রীলঙ্কা সফরে বাংলাদেশের প্রাপ্তি নিয়েও কথা বলেন বিসিবি সভাপতি। তার মতে এবারের সফরে বাংলাদেশের সবচেয়ে ভাল হয়েছে টিম ওয়ার্ক, ‘এই সিরিজে আমাদের সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি টিম ওয়ার্ক। দারুণ টিম ওয়ার্কের কারণে টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টিতে সবাই ভাল খেলেছে। সিনিয়র-জুনিয়র সবাই জান দিয়ে খেলেছে।
এরমধ্যে আমরা কিছু নতুন প্লেয়ার পেয়েছি। যেমন ধরেন মিরাজ; ওর বোলিং বাদ দেন, ফিল্ডিং দেখতে সবার ভাল লাগে। সাব্বির আছে, মোসাদ্দেক আছে। এধরণের ফিল্ডার আমাদের দলে এসেছে, ওরা অসাধারণ ফিল্ডিং করছে।’
সাকিবকে নিয়েও কথা বলেন তিনি, ‘সাকিব, যে নাকি বিশ্বসেরা তাকে আমরা নতুন রূপে দেখছি। সে এখন অনেক পরিপক্ব। অনেক দায়িত্ববোধ তার মধ্যে মনে হচ্ছে। এর সবই ইতিবাচক। মুশফিকের কিপিং দেখে মনে হয়েছে ব্যাটিংয়ের চাইতে ওর কিপিংই দেখতে ভাল লাগে। মাশরাফির বোলিং দেখেছেন? সে ছিল সব চাইতে সেরা।’


SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: