১৮ মার্চ, ২০১৭

কলারোয়ায় ৫ নারী পাচারকারী আটক, উদ্ধার ৩ নারী

জুলফিকার আলী, কলারোয়া (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি
সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ৫ নারী পাচারকারী আটকসহ ৩ নারীকে উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কলারোয়া উপজেলার দমদম বাজারে।
কলারোয়া থানার অফিসার ইনর্চাজ এমদাদুল হক শেখ জানান, এলাকাবাসীর দেওয়া সংবাদের ভিত্তিতে থানার সেকেন্ড অফিসার ইয়াছিন আলম চৌধুরী,এসআই ইমদাদুল হক সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে ওই স্থান থেকে তাদেরকে আটক করে। এসময় তাদের ব্যবহৃত একটি ঢাকা মেট্রোঃ-গ- ১৪-৩৮৬০ সাদা রংয়ের প্রাইভেট কার আটক করা হয়। আটকৃত নারী পাচারকারীরা হলো- নেয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জ উপজেলার আলাইপুর গ্রামের গোলাম কবিরের ছেলে সাকেরুল কবির ইকবাল(৩২), নারায়নগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলার বারদি গ্রামের মোস্তফা কামালের ছেলে মাহমুদুল হাসান সুমন(২৫), ঢাকার ডিএমপির শাহাজানপুর থানার শান্তিবাগ-১০৭ এর আক্তারী কামালের ছেলে হাবিবুল্লাহ(২২), শরিয়তপুর জেলার ডামুড্যা থানার কানাইকাটি গ্রামের লাল চান মিয়ার ছেলে আক্কাস আলী বাবু(২৮), এই গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের ছেলে ইব্রাহিম হোসেন (৩৫)। উদ্ধার হওয়া তিন তরুনী হলো- চট্টগ্রামের বায়জিদ থানার পার্শ্বে তাজু মাস্টারের বাড়ির ভাড়াটিয়া এপি সাং-
মোহাম্মাদনগর, কুমিল্লার বুড়িরচং থানার জাতপুর গ্রামের শাহাজান আলীর মেয়ে নাহিদা বেগম(২২), ফেনীর সোনাগাজী থানার চরকৃষ্ণজয় গ্রামের মৃত মহরুর আলীর মেয়ে সুমি বেগম(১৯), চট্টগ্রামের বায়জিদ থানার পার্শ্বে তাজু মাস্টারের বাড়ির ভাড়াটিয়া এপি সাং-মোহাম্মাদনগর, ফেনী জেলার সোনাগাজী থানার মির্জাপুর গ্রামের আঃ খালেকের মেয়ে আরজু আক্তার(১৮)।
উদ্ধার হওয়া তরুনীরা জানায়, পাচারকারীরা বিভিন্ন সময় উচ্চ বেতনে চাকুরী দেওয়ার প্রলোঝন দেখিয়ে ৪০হাজার করে মোট-১লাখ,২০হাজার টাকা নিয়ে ওমানের নিয়ে যাওয়ার জন্য তাদের নিয়ে আসে। পরে তার কৌশলে ভারতে পাচার করার জন্য চক্রান্ত করতে থাকলে তাদের সন্দে হয়। রাত সাড়ে ১০টার দিকে কলারোয়া উপজেলার দমদমা বাজার এলাকায় পৌছালে ওই ৩নারী চিৎকার দিলে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসে। পরে কলারোয়া থানায় পুলিশকে খবর দিয়ে ঘটনার প্রকার পায়। আটককৃত নারী পাচার কারীরা বিভিন্ন এলাকা থেকে অসহায় নারীদের বিদেশে ভাল চাকুরি ও বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ভারতে পাচার করে আসছিলো বলে জানা গেছে।
এঘটনায় কলারোয়া থানায় নারী পাচারকারীদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের হয়েছে।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: