৩ মার্চ, ২০১৭

শেষ রক্ষা পেল না সেই বানরটি

শেষ রক্ষা হল না সেই বানরটি যেটি নড়াইলের লোহাগড়ায় একটি বিনোদন দেওয়ার শিশুসহ ৯ জনকে কামড়ে আহত করেছে। বুধবার(১মার্চ) সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বানর আতঙ্কে থাকার পর বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দীর্ঘ ৪ ঘন্টা অভিযান চালিয়ে ওই বানরটিকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা করেছে।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, বুধবার (১মার্চ) সন্ধ্যায় লোহাগড়া পৌর এলাকায় নিরিবিলি পিকনিক স্পটের চিড়িয়াখানা থেকে একটি বানর বের হয়ে শহরের মশাঘুনি, রামপুর,লক্ষীপাশা,কচুবাড়িয়া ও সিংগা এলাকায় ঢুকে পড়ে।
এলাকাবাসী কোন কিছু আচঁ করার আগেই বানরটি দাবড়িয়ে মানুষজনকে কামড়াতে থাকে।
এসময় এলাকাবাসীর মাঝে বানর আতংক ছড়িয়ে পড়ে। বানরের কামড়ে মশাঘুনি এলাকার শিশু নিরব (৫), সেলিম মিস্ত্রী (৪৮), বাকা গ্রামের ভ্যান চালক ফুল মিয়া (৬০), লক্ষীপাশা গ্রামের মিরাজ ফকির (৫০), লক্ষীপাশা গ্রামের হালিমা বেগম (৬৭), কচুবাড়িয়া গ্রামের সাগর (৪৫), রাজুপুর গ্রামের জহুর মোল্যা (৫০) গুরুতর আহত হয়। আহতদেরকে লোহাগড়া, নড়াইল সদর ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত কয়েকজন জানান, বানরটি উপজেলার রামপুর এলাকায় অবস্থিত নিরিবিলি পিকনিক স্পটের মিনি চিড়িয়াখানা থেকে বেরিয়ে লোকালয়ে ডুকে পড়ে এবং তাড়া করে মানুষজনকে কামড়াতে থাকে।
রাতভর ঐ সব এলাকার লোকজন বানরের ভয়ে লাঠিসোটা নিয়ে বাড়ির বাইরে ও বাগানে পাহারা দিতে থাকে। এ দিকে বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী বানরটিকে ধরার জন্য দা, লাঠিসোঠা নিয়ে অভিযান শুরু করে।
দীর্ঘ ৪ ঘন্টা অভিযান শেষে এলাকাবাসীর তাড়া খেয়ে বানরটি পাশ্ববর্তী নবগঙ্গা নদীর মধ্যে পড়ে যায়। এ সময় বিক্ষুদ্ধ এলাকা বাসী বানরটিকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা করে পার্শ্ববর্তী একটি স্কুলের মাঠে বাঁশের সাথে ঝুলিয়ে রাখে। মৃত বানরটিকে দেখার জন্য স্কুল মাঠে শতশত মানুষ ভিড় করে।
প্রাণী সম্পদ রক্ষনাবেক্ষনের ব্যাপারে কথা বললে লোহগড়া উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ কাজী মোস্তাইন বিল্লাহ বলেন, বন্য প্রাণীকে চিকিৎসা করা আমাদের কাজ। হত্যার বিষয়ে বন বিভাগ সিদ্ধান্ত নিবে। বানর হত্যার ব্যাপারে খুলনা বিভাগীয় বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের পরিদর্শক রাজু আহম্মেদ জানান,বানর হত্যার বিষয়ে তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
লোহাগড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সেলিম রেজা বলেন ‘বানরের বিষয়টি উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। যথাযথ কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিবেন।’

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: