১৩ ফেব, ২০১৭

২০৮ রানের হার বাংলাদেশের

২০৮ রানের হার বাংলাদেশের



ভারতের মাটিতে প্রথম টেস্টে হেরে গেল সফরকারী বাংলাদেশ। ৪৫৯ রানের পাহাড় সমান টার্গেট মাথায় নিয়ে খেলতে নামে টাইগাররা। ২৫০ রানেই অলআউট হওয়ায় ২০৮ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ভারত।

হায়দরাবাদের রাজীব গান্ধী স্টেডিয়ামে ঐতিহাসিক এই টেস্ট ম্যাচটি ড্র করার সুযোগ থাকলেও প্রথম সারির ব্যাটসম্যানদের দায়িত্বহীনতার কারণেই সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা উইকেটে সেট হয়েও যেভাবে আউট হয়েছেন তা মেনে নেয়ার মতো না। ভারতের বোলাররা খুব আহামরি ভালো বল করেছে সেটা কখনই বলা যাবে না। বরং বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা উইকেট বিলিয়ে দিয়ে এসেছেন।

৩ উইকেটে ১০৩ রান নিয়ে পঞ্চম দিনের খেলা শুরু করে বাংলাদেশ। যে সাকিবের দিকে সবাই তাকিয়ে সেই সাকিব সোমবার শুরুতেই সাজঘরে ফিরে যান। আগের দিনের ২১ রানের সঙ্গে মাত্র এক রান যোগ করতে পারেন তিনি।

দিনের শুরুতে রবিন্দ্র জাদেজার বলটি সাকিবের ব্যাট-প্যাড হয়ে শর্ট লেগে গেলে দুর্দান্ত ক্যাচ নেন চেতশ্বর পূজারা। এরপর রিয়াদ ও মুশফিক প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। অশ্বিনের ওভারে দ্বিতীয় বলে বাউন্ডারি পাওয়ার পরও চতুর্থ বল তুলে মারতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনে জাদেজার হাতে ধরা পড়েন ২৩ রান করা অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। এর মধ্য দিয়ে ভাঙে ৫৬ রানের জুটি।

এরপর সাব্বির রহমানকে নিয়ে দলের হাল ধরেন রিয়াদ। তবে ৫১ রানের এই জুটি ভাঙে দলীয় ২১৩ রানে। ইশান্ত শর্মার বলে সাব্বির রহমান ২২ রান করে এলবিডব্লিউ হন। দলীয় ২২৫ রানে ভুবনেশ্বর কুমারের তালুবন্দি করে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে ফেরান ইশান্ত শর্মা। ১০ ইনিংস পর ৬৪ রান করে ফেরেন রিয়াদ।

সর্বশেষ ২০১৫ সালে রিয়াদ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৬৭ রান করেছিলেন তিনি। এরপর নয় ইনিংসে তিনি ১০ থেকে ৪০ রানের মধ্যে আউট হয়েছেন।

এরপর মেহেদী হাসান মিরাজ ২৩ রান করে জাদেজার বলে আউট হলে পরাজয়টা সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। তাইজুলকে জাদেজা এবং তাসকিনের উইকেটটি তুলে নেন অশ্বিন। তবে ৭০ বল খেলে ৩ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন কামরুল ইসলাম রাব্বী।

এদিকে, ভারতের হয়ে জাদেজা ও অশ্বিন উভয়েই ৪টি করে এবং ইশান্ত শর্মা ২টি উইকেট লাভ করেন।

প্রথম ইনিংসে ২৯৯ রানে এগিয়ে থাকার পর দ্বিতীয় ইনিংসে ৪ উইকেটে ১৫৯ রানে ইনিংস ঘোষণা করে ভারত। এতে বাংলাদেশের সামনে ৪৫৯ রানের পাহাড় সমান লক্ষ্য দাঁড়ায়।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: