১৮ জানু, ২০১৭

কলারোয়ায় শেখ আমানুল্লাহ ডিগ্রী কলেজে চুরিসহ পাঁচ মামলার আসামী প্রকাশ্যে

কলারোয়ায় শেখ আমানুল্লাহ ডিগ্রী কলেজের চুরিসহ ৫টি মামলার আসামী প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।ঘটনার বিবরণে জানা গেছে,কলারোয়া শেখ আমানুল্লাহ ডিগ্রী কলেজের সহকারী অধ্যাপক আবুল খায়ের বিভিন্ন সময় বিভিন্ন স্থানে অপকর্ম করার ঘটনায় তার বিরুদ্ধে ৫টি মামলা ও ২টি জিডি হয়েছে।
সম্প্রতি শেখ আমানুল্লাহ ডিগ্রী কলেজে একটি চুরির ঘটনায় জড়ির থাকার অভিযোগে ওই কলেজের অফিস সহকারী আব্দুল গফ্ধসঢ়;ফারকে পুলিশ আটক করে জেলহাজতে প্রেরণ করে। পরে তাকে রিমান্ডে এনে অনেক গোপন তথ্য উদঘটন করে থানা পুলিশ। এদিকে এই চুরির ঘটনায় জড়ির থাকার সন্দেহ কলেজ
অধ্যাক্ষ মনিরা বেগম বাদী হয়ে কলারোয়া থানায় একটি মামলা ও জিডি করেন। এদিকে এই মামলা ও জিডি করার ঘটনায় আবুল খায়ের কলেজ অধ্যক্ষ মনিরা খাতুনকে জীবন নাশের হুমকি দিয়ে চলেছে।
গতকাল বুধবার সকালে কলেজ অধ্যক্ষ মনিরা খাতুন সাংবাদিকদের জানান, এই কলেজের গুরুত্বপূর্ণ ফাইল চুরির ঘটনায় তিনি এমপি এড.মুস্তফা লুৎফুল্লাহ, ইউএনও উত্তম কুমার রায়কে জানিয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে কলেজের অফিস সহকারী আব্দুল গাফফারকে গ্রেফতার করে। পরে তার আলমারি থেকে চুরি হওয়া ৩টি ফাইল উদ্ধার করে পুলিশ। এখনো ২টি ফাইল উদ্ধার হয়নি।
এদিকে প্রায় সময় কলেজে কলেজ অধ্যক্ষ মনিরা খাতুনকে সন্ত্রাসী কায়দায় আবুল খায়ের হুমকি দিয়ে চলেছে। এমনকি তার অব্যাহত হুমকিতে তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। যে কোন সময় মারাক্তক ধরনের ক্ষয়ক্ষতি করতে পারে বলে তিনি ধারনা করছেন। এদিকে এই আবুল খায়েরের বিরুদ্ধে কলারোয়া থানায় সাধারণ ডায়েরী নং-১০৯৩, ৩০লাখ টাকা আত্মসাত মামলা নং-সিআরপি-২৯৬/১৩, গোবিন্দকাটি গ্রামে চুরি মামলা নং-১৩/(৮)১৩, প্রভাষক রফিকুল ইসলামকে হত্যা প্রচেষ্টা মামলা নং-১৭(১১)১৪, পেনাল কোডের মামলা নং- ১৪৩/১৪, দ্যা ক্রিমিনাল প্রসিডিউর কোড ১৮৯৮এর ২০০ ধারার মামলা নং-১৪, জিডি নং-৮১৮, মামলাসহ ৫টি মামলা রয়েছে।
অথচ একজন কলেজের অধ্যক্ষকে জীবন নাশের হুমকিসহ নানা ধরনের ঘটনা একাধিক বার ঘটনার পরেও তাকে থানা পুলিশ অদৃশ্য কারনে আটক না করায় শেখ আমানুল্লাহ ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মনিরা খাতুন জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।
তিনি বলেছেন কলারোয়া থানায় নিরাপত্তা চেয়ে জিডি করার পরেও পুলিশ তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি। তিনি ওই সন্ত্রাসীর দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হলে থানার পুলিশ দায় থাকবেন বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছে। এদিকে বিতর্ক ব্যক্তি আবুল খায়েরের গ্রেফতারে প্রতিবাদ জনিয়েছেন শেখ আমানুল্লাহ ডিগ্রী কলেজের শিক্ষকবৃন্দ।
বাংলাদেশ সময়: ১৪৪৪ ঘণ্টা, ১৮ জানুয়ারি ২০১৭

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: