২ জানু, ২০১৭

সংসদ প্রাঙ্গণে লিটনের জানাজা, রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

সংসদ প্রাঙ্গণে লিটনের জানাজা, রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা



গাইবান্ধা-১ আসনের সংসদ সদস্য মঞ্জরুল ইসলাম লিটনের দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২ জানুয়ারি সোমবার সকাল ১০টায় জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় মরহুমের কফিনে রাষ্ট্রপতির পক্ষে প্রথমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সামরিক সচিব মেজর জেনারেল সরোয়ার হোসেন। এরপর কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শ্রদ্ধা নিবদেনের পর প্রধানমন্ত্রী প্রয়াত এই সংসদ সদস্যের পরিবারের সদস্যদের সান্ত্বনা দেন।

এরপর স্পিকার ডা. শিরীন শারমিন চৌধুরী শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সভাপতি শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়েছে। এসময় মন্ত্রীপরিষদ সদস্যরাসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষজন উপস্থিত ছিলেন।

জানাজার আগে লিটনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ, লিটনের ভগ্নিপতি আবদুল্লাহ বিল বারী, মাহাবুব-উল আলম হানিফ এবং ফজলে রাব্বী মিয়া।

গাইবান্ধার সংসদ সদস‌্য ও ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, “অপরিণত বয়সে লিটনের মৃত্যু হয়েছে। এটা জামাত-শিবিরের চক্রান্ত। গোলাম আজমকে সুন্দরগঞ্জের মাটিতে নামতে দেয়নি লিটন। এই দোষের শিকার হল লিটন।” 

এর আগে রংপুর পুলিশ লাইন স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে এমপি লিটনের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে নামাজে জানাজা শেষে মরদেহ আনা হয় ঢাকায়। রাতে বারডেম হাসপাতালের মর্গে রাখা হয় মরদেহ। সকাল সোয়া নয়টার দিকে লিটনের মরদেহ এই হাসপাতাল থেকে নেয়া হয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায়। সকাল ১০টার দিকে জানাজায় যোগ দেন সংসদ সদস্যরা। আজই মরহুমের গ্রামের বাড়িতে তৃতীয় জানাজা শেষে বিকেল ৪টায় তার লাশ দাফন করা হবে।

উল্লেখ্য, ৩১ ডিসেম্বর শনিবার সুন্দরগঞ্জের নিজ বাসায় গুলিতে নিহত হন সংসদ সদস্য লিটন। পাঁচজন দুর্বৃত্ত ঘরে ঢুকে আলোচনার কথা বলে তাকে গুলি করে। সঙ্গে সঙ্গে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: