৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬

নতুন আশাবাদ নিয়ে নববর্ষ উদযাপনের অপেক্ষায় জাতি

cox's bazar pic এর চিত্র ফলাফল
আগামীকাল রোববার নতুন আরেকটি বছরের শুরু হতে যাচ্ছে। নতুন বছর ২০১৭ সালকে বরণ করার লক্ষ্যে জাতি প্রস্তুত। বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে নববর্ষের প্রথম দিনটি উদযাপিত হবে। ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ, দেশ তথা সমগ্র বিশ্বের সুখ ও উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করা হবে এই দিনটিতে।
এই বিশেষ দিনটিকে উপলক্ষ করে ইতোমধ্যে বিভিন্ন ক্ষুদে বার্তা ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে শুভেচ্ছা বিনিময় শুরু হয়েছে। বিভিন্ন কর্পোরেট, সরকারি ও বেসরকারি সংস্থা ও সংগঠনও প্রতি বছর নিকটজনদের কাছে শুভেচ্ছা বার্তা প্রদান করে থাকে।
এই দিনটিতে বিদায়ী বছরের সাফল্য ও ব্যর্থতা ফিরে দেখা হয় এবং নতুন বছরে কীভাবে লক্ষ্য অর্জন করা যায়, সেজন্য পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। বছরের অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পন্ন করার জন্যও কর্মপরিকল্পনা নেওয়া হয়।
২০১৬ সাল বাংলাদেশের জন্য ছিল একটি লক্ষ্যণীয় সাফল্যের বছর। রাজনীতি, অর্থনীতি, কৃষি ও পর্যটন ও মধ্যম আয়ের দেশে এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তির সাফল্য ছিল উল্লেখযোগ্য।
দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও শান্তিপূর্ণভাবে অতিবাহিত হয়েছে ২০১৬ সাল। আগের বছরগুলোর মতো এ বছরটিতে হরতাল ও অন্যান্য ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড ছিল না। শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক পরিবেশ বজায় ছিল সারাটি বছরজুড়ে। ফলে অন্যান্য সময়ের তুলনায় দেশের অর্থনীতি দ্রুত এগিয়ে গেছে এবং ক্ষুদ্র অর্থনীতি নির্দেশকে নতুন অনেক রেকর্ড স্থাপিত হয়েছে।
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্যে দেখা যায়, বিদায়ী বছরে রেকর্ড পরিমাণ জিডিপি ৭ দশমিক ১১ ও মাথাপিছু গড় আয় সর্বোচ্চ রেকর্ড ১ হাজার ৪৬৫ ডলারে উন্নীত হয়েছে।
বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানায়, গত নভেম্বরে মুদ্রাস্ফীতি ছিল ৫ দশমিক ৩৮, যা ২০১৬-১৭ আর্থিক বছরে লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫ দশমিক ৮। ব্যাংকের রিজার্ভও ৩২ বিলিয়ন ডলারের কাছাকাছি ছিল, যা একটি রেকর্ড।
২০১৬ সালে কৃষি ক্ষেত্রেও ব্যাপক সাফল্য দেখা গেছে। এ সময় কৃষকরা খাদ্যশস্যে শুধু অভ্যন্তরীণ চাহিদাই মেটায়নি, বিদেশেও তা রফতানি হয়েছে।
বাংলাদেশ বিশ্বে সবজি উৎপাদনে তৃতীয় ও মাছ উৎপাদনে ৪র্থ স্থান অধিকার করেছে। এছাড়া কৃষি উৎপাদন ও মূল্য গ্রহণযোগ্য হওয়ায় কৃষক ও ভোক্তা উভয়েই খুশি ছিলেন বিদায়ী বছরটিতে।
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উপদেষ্টা ড. মো. আখতারুজ্জামান জানান, ২০১৬ সালে প্রধান অর্থনৈতিক সূচকগুলোই ছিল শক্তিশালী। ২০১৭ সালে যা অব্যাহত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।
গত কয়েক বছরের মতো বিদায়ী বছরেও তথ্যপ্রযুক্তি খাত বেশ শক্ত অবস্থানে ছিল। এতে জনগণের সেবার পরিধি আরও বেড়েছে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট প্রকল্পের জন্য দেশ সম্মানজনক আইটিইউ টেলিকম ওয়ার্ল্ড অ্যাওয়ার্ড লাভ করেছে।
বাংলাদেশের জনগণের জন্য ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ বাস্তবায়নে ব্যাপক ভূমিকার স্বীকৃতিস্বরূপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ‘আইসিটি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যাওয়ার্ড-২০১৬’ লাভ করেন।
দেশের এমন শক্ত অবস্থানের প্রেক্ষাপটে জাতি আগামীকাল উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে নতুন বছরকে স্বাগত জানাবে। জাতি আশা করবে সুখী ও সমৃদ্ধশালী দেশ।
নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। থার্টি ফার্স্ট নাইট ও ১ জানুয়ারির বরণ লগ্ন যাতে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয় সেজন্য নিরাপত্তা বাহিনী নিয়োজিত থাকবে।
ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান মিয়া জানান, যেকোনো রকম অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ৩১ ডিসেম্বর রাতে ঢাকা মহানগরকে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে রাখা হবে। এতে আইন-শৃংখলা বাহিনীর ১০ হাজার সদস্য পোশাক ও সাদা পোশাকে তাদের দায়িত্ব পালন করবে।
তিনি সাংবাদিকদের জানান, থার্টি ফার্স্ট-এর নামে দেশের সংস্কৃতি, মূল্যবোধ ও ঐতিহ্যের বিরুদ্ধে কোনো কর্মকাণ্ড বরদাশত করা হবে না।
সূত্র: বাসস

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: