২ ডিসেম্বর, ২০১৬

যশোর মুসলিম এইডের উদ্যোগে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠির শিশু শিক্ষার্থীকে মাসিক ভিত্তিতে শিক্ষা সহায়তার বৃত্তি প্রদান

বাংলাদেশের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠির শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বাসস্থানসহ মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠায় নিবেদিত মানবিক সংগঠন মুসলিম এইড ইউকে – তার ‘রেইনবো ফ্যমিলী’ প্রোগ্রামের মাধ্যমে শিক্ষার অধিকার বঞ্চিত মানুষের শিক্ষা নিশ্চিত করতে নিরলস ভাবে কাজ করছে ।
তারই অংশ হিসেবে মুসলিম এইড যশোরাঞ্চলের ১২০ জন শিশু শিক্ষার্থীকে মাসিক ভিত্তিতে শিক্ষা সহায়তার বৃত্তি প্রদান করছে। যশোরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যায়নরত এসব শিক্ষার্থীরা স্ব স্ব পরিবারে থেকে লেখাপড়ার পাশাপাশি নানা ধরনের ইনোভেশনমুলক কর্মকান্ডের মাধ্যমে ইতিমধ্যে তাদের মেধা ও মননশীলতা বিকাশের স্বাক্ষর রেখেছে। মুসলিম এইড বিশ্বাস করে পরিবার শিশুর বড় শিক্ষা কেন্দ্র । আর এ কারনেই মুসলিম এইড তার রেইনবো ফ্যামিলী প্রোগ্রামের মাধ্যমে দীর্ঘ দিন শিশুদের শিক্ষা সহায়তা প্রদান করছে।
তারই অংশ হিসেবে আজ বুধবার সকালে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত এসব শিশু শিক্ষার্থীদের হাতে শিক্ষাসহায়তার নগদ অর্থ তুলে দেন যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট(উপসচিব) মুহাম্মদ সোহেল হাসান। এমএআইটি যশোরের অধ্যক্ষ প্রকৌশলী আরিফ নূরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেস অতিথি ছিলেন যশোর কলেজের সহকারী অধ্যাপক শরিফুল আলম ও উপশহর ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান হাসান জহির। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন রেজিস্টার সাংবাদিক নূর ইসলাম।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যের মাধ্যমে সমাজের অসহায় এসব শিশুদের শিক্ষা অধিকার নিশ্চিত করতে মুসলিম এইড এর উদ্যোগকে স্বাগত জানান। তিনি শিশুদের উদ্দেশ্য করে বলেন, নিজেদের অসহায় ভাবার কোন কারন নেই। মনে রাখতে হবে নিজের ভাগ্য নিজে গড়তে হবে। নিজের মেধা ও মননশীলতা কাজে লাগিয়ে নিজেকে সমাজের প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। সমাজের অন্য ১০ জনের মতো নিজেকেও গুরুত্বপূর্ণ ভাতবে হতে ও সে মোতাবেক কাজ করতে হবে। সমাজের মেধা বিকাশে মুসলিম এইড তার রেইবো ফ্যামিলী প্রোগ্রামের মাধ্যমে সরকারের পাশাপাশি যে দায়িত্ব পালন করছে তা অব্যাহত থাকবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। পরে প্রধান অতিথিসহ অন্যান্য অতিথিরা শিশু শিক্ষার্থীদের হাতে শিক্ষাসহায়তার নগদ অর্থ তুলে দেন।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: