২৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

সিদ্দিকুর রহমান এর ব্যক্তিগত জীবন

১৯৮৪ সালের ২০ নভেম্বর মাদারীপুরের এক দরিদ্র পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন সিদ্দিকুর রহমান। তার পুরো নাম মোহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান। বাবা আফজাল হোসেন এবং মা মনোয়ারা বেগমের চার পুত্রের মধ্যে তিনি তৃতীয়। খবর রাইজিংবিডির
পৃথিবীতে আগমন করেই আর দুই ভাইয়ের মত এক বিশাল অভাবের সংসারে পা রাখেন তিনি। বাবা কোনো নির্দিষ্ট পেশার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন না। যখন যে কাজ পান সেটা দিয়ে টেনেটুনে সংসার চালানোর চেষ্টা করে যান। কিন্তু মাদারীপুরে বিভিন্ন কাজ করে সংসার টেনে নেওয়া সম্ভব হয়না বাবার পক্ষে। অগত্যা ঢাকার পথে পাড়ি জমাতে হয় 

তার। পুরো পরিবার নিয়ে চলে আসেন ঢাকার বেশ কাছে ধামালকোটের বস্তিতে।
বস্তিটা ছিল সন্ত্রাসীদের এক বিশাল আড্ডাখানা। কিন্তু সে ছোঁওয়া অন্য দু-ভাইয়ের মতো সিদ্দিকুরকেও স্পর্শ করতে পারেনা। তিনি ছোটবেলা থেকেই স্কুলে যাওয়া শুরু করেন। কিন্তু বেশিদিন আর পড়ালেখা চালানো সম্ভব হয়না। এরপর ১৯৯১ অভাবের কারণে দ্বিতীয় শ্রেণীতে পড়াকালীন সময়ে বাবা আফজাল হোসেন পাশের বাড়ির একজন ছেলের সঙ্গে কাজের প্রয়োজনে ঢাকার কুর্মিটোলায় অবস্থিত সেনাবাহিনীর গলফ ক্লাবে পাঠিয়ে দেন। সেখানে তিনি ‘বলবয়’ হিসেবে ৩০ টাকা বেতনে বল কুড়ানোর কাজ পান। মূলত সেখান থেকেই শুরু হয় গলফের সঙ্গে সিদ্দিকুর রহমানের স্পর্শ।
এরপর থেকে একপ্রকার জীবনের বড় বড় ধাপ পেরনোর সুযোগ সামনে আসে তার। বেশ কিছুদিন বলবয় হিসেবে কাজ করার পর গলফ ক্লাবে ‘ক্যান্ডি’ হিসেবে কাজ করার সুযোগ পান। সেখান থেকে ১৯৯৯ সালে কুর্মিটোলা ক্লাবের প্রতিভাবান গলফার বাছায়ে অংশগ্রহণ করে ১৫০ জনের মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করে তরুণ গলফার হিসেবে যাত্রা শুরু হয় তার। এরপর ২০০০ সাল থেকে থেকে নিয়মিতভাবে অপেশাদারী গলফ খেলা শুরু করলেও অভাব তার পিছু ছাড়েনা। কস্টের মধ্যে চালিয়ে যেতে হয় গলফ খেলা।
কিন্তু ২০০৫ সাল থেকে জীবনের মোড় ব্যাপকভাবে পরিবর্তন হওয়া শুরু করে। তিনি ২০০৫ সালে সর্বপ্রথম পেশাদার গলফ খেলা শুরু করেন। ২০০৬, ২০০৮, ২০০৯, ২০১০ সালে দেশে বিদেশের বিভিন্ন গলফ টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করে ভালো সাফল্য পান। ২০১০ সালে প্রথমবারের মতো কোনো বাংলাদেশী হিসেবে এশিয়ান ট্যুরে প্রথম শিরোপা ব্রুনাই ওপেন জেতার পর থেকেই বিশ্ব গলফে আলোচনায় আসেন সিদ্দিকুর রহমান।
এছাড়া ২০১৩ সালে আবারো এশিয়ান ট্যুরে আলোচনায় আসেন সিদ্দিকুর রহমান। সেবার জিতে নেন ‘হিরো ইন্ডিয়ান ওপেন গলফ’ এর শিরোপা। ২০১৩ সালে অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থিত হান্ডা গলফ ওয়ার্ল্ড কাপে প্রথম কোনো বাংলাদেশী হিসেবে অংশ নিয়েও তিনি বেশ গৌরব অর্জন করেন। ২০১৫ সালের মে মাসে আফ্রো-এশিয়া ব্যাংক মরিশাস ওপেনে রানারআপ হয়ে বেশ সুনাম অর্জন করেন তিনি।
২০১৫ সালে জীবনের নতুন আরেকটা যাত্রা শুরু হয় সিদ্দিকুর রহমানের। বাংলাদেশের কুষ্টিয়ার মেয়ে সামাউন আনজুম অরনীকে জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নেন।
বর্তমানে পরিবারের সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে ঢাকার ধামালকোটে বসবাস করেন সিদ্দিকুর রহমান।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: