২৫ নভেম্বর, ২০১৬

প্রায় ২শ’ বছরের পুরনো গাছগুলো না কেটে যশোর-বেনাপোল মহাসড়ক সম্প্রসারণের দাবি

যশোর-বেনাপোল মহাসড়কটি চার লেনে উন্নীত করার সরকারের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানালেও ইতিহাসের সাক্ষী পৌনে দুইশ’ (১৭৪) বছর আগের রেইন্ট্রি গাছগুলো না কেটে রাস্তা সম্প্রসারণের দাবি করেছেন যশোরবাসী।
ইতিহাস থেকে জানা গেছে কালী পোদ্দারের মা ছায়ায় ছায়ায় গঙ্গা স্নানে যাবেন- এ জন্য রাস্তার দুই ধারে বিদেশ থেকে অতি বর্ধনশীল রেইন্ট্রির চারা এনে রোপণ করেন। সেই বৃক্ষগুলোই যশোর-বেনাপোল সড়কে এখনো ছায়া দিচ্ছে। দেশ ভাগের পর ৮০ কিলোমিটার ওই সড়কের যশোরের বকচর থেকে বেনাপোল চেকপোস্টের শূন্য রেখা পর্যন্ত ৩৮ কিলোমিটার পড়ে বাংলাদেশ অংশে। বাকী ৪২ কিলোমিটার পড়ে ভারতের ভেতরে। বেনাপোলের ওপারে ভারতীয় অংশের এই রোডটি চার লেনের। ওখানে শতবর্ষি গাছগুলোই সারি সারি দাঁড়িয়ে আছে চার লেনের মাঝখানে। গাছগুলোই রাস্তার মূল সৌন্দর্যকে বাড়িয়ে দিয়েছে।
যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের পাশের শতবর্ষি গাছগুলো রেখেই চার লেন করার দাবি জানিয়েছেন যশোরে শার্শা, ঝিকরগাছা ও বেনাপোলবাসী। শতবর্ষি গাছগুলো বাঁচিয়ে রাখার আহবান জানিয়ে মহান জাতীয় সংসদে বিষয়টি উত্থাপন করেছেন যশোর-২ (ঝিকরগাছা-চৌগাছা) আসনের সংসদ সদস্য মনিরুল ইসলাম মনির।
যশোর রোড ব্রিটিশ ভারতের একটি ঐতিহ্যবাহি রোড। যশোরের চাঁচড়া থেকে বেনাপোল জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত মহাসড়কটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আগামী ১ জানুয়ারি থেকে এ সড়কের সম্প্রসারণের কাজ শুরু হবে। শেষ হবে ২০১৯ সালে। সড়কের উভয় পাশে প্রায় ২শ’ বছরের পুরাতন অসংখ্য রেইন্ট্রি রয়েছে। যা সড়কের সৌন্দর্য বহন করে। বয়স হওয়ায় অনেক গাছ নষ্ট হয়েছে।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: