৩০ নভেম্বর, ২০১৬

যশোরে আমনের ফলন ভালো, তবে দাম কম

যশোরে অতিবর্ষণে ক্ষতির পরও আমন ধানের ভালো ফলন হয়েছে। তবে দাম নিয়ে শঙ্কিত কৃষক।

বাজারে ধানের সরবরাহ বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে কমছে দাম। তাই কৃষকের হাসি বাজারে এসে ম্লান হয়ে যাচ্ছে।

যশোর আঞ্চলিক কৃষি অফিস সূত্র জানিয়েছে, এ বছর এ অঞ্চলের ৬ জেলায় রোপা আমনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪ লাখ ২০ হাজার ৭৫৩ হেক্টর। আবাদ করা হয় ৪ লাখ ৮ হাজার ৪১৫ হেক্টর। আমন রোপনের সময় অতিবর্ষণের কারণে ১৯ হাজার ৯৫০ হেক্টর জমির ধানের চারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তারপরও ভালো ফসল ফলাতে সক্ষম হয় কৃষকরা।

যশোর সদর উপজেলার হাশিমপুরের কৃষক সাইদুর রহমান জানান, আড়তে ধান যত বেশি আসছে, দাম তত পড়ছে। প্রথমদিকে যে দাম পাওয়া যাচ্ছিল, দিনকে দিন তা কমছে। গত তিন দিনে কমেছে প্রায় একশত টাকা। এভাবে দর পড়তে থাকলে ধানের উৎপাদন খরচ উঠানো কঠিন হবে।

তিনি জানান, ধান ওঠার শুরুতে তিনি ১৫ মণ বিক্রি করেছিলেন। তখন দাম পান ৮৫০ টাকা মণ। এখন সেই ধানের দাম ৭৬০-৭৭০ টাকা।

আরেক কৃষক সদর উপজেলার খোলাডাঙ্গা এলাকার বরকত আলী জানান, প্রতি বিঘায় ধান উৎপাদন করতে তার খরচ হয়েছে ৯ হাজার টাকার বেশি। তাই এখন খরচ উঠানো নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন। গত দুই দিনে যে হারে ধানের দাম কমেছে, আগামীতে আরো কত কমবে তা বলা কঠিন।

যশোরের বড় ধানের মোকাম পুলেরহাট। পুলেরহাটের নিপুণ এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী মাসুদুর রহমান বলেন, হাটে যোগানের সঙ্গে সঙ্গে দাম বৃদ্ধি বা কমার সম্পর্ক রয়েছে। আমন উঠতে শুরু করার পরপরই দাম ৮৫০-এর কাছাকাছি ছিল। এখন ৭৭০ টাকার মতো দাম চলছে। তবে ভালো মানের ধানের দাম একটু বেশিই থাকছে।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: