১ মার্চ, ২০১৫

যশোর ইন্সটিটিউট নির্বাচনে জয়ী হলেন যারা

উৎসবমুখর পরিবেশে শান্তিপূর্ণভাবে যশোর ইন্সটিটিউট পরিচালনা পর্ষদের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। নির্বাচনে ২০ পদের মধ্যে শেখ রবিউল আলমের নেতৃত্বাধীন সংস্কার ও উন্নয়ন প্যানেলের ১৩ সদস্য এবং ড. মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে পরিবর্তন ও উন্নয়ন সমিতি প্যানেলের ৭ প্রার্থী জয়ী হয়েছেন।
শনিবার সকালে বেসরকারিভাবে প্রকাশিত ফলাফলে এতথ্য জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম। এর আগে শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত একটানা এ ভোটে ৩ হাজার ১৪২ জন ভোটারের মধ্যে ২ হাজার ৫৩৪ জন তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এরপর বিকাল ৬টা থেকে ভোট গগণা শুরু হলেও শেষ হতে সময় লাগে শনিবার ভোর পর্যন্ত।
ভোট গগণা শেষে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক শেখ রবিউল আলমের নেতৃত্বাধীন সংস্কার ও উন্নয়ন প্যানেলের ১৩ সদস্য এবং ড. মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে পরিবর্তন ও উন্নয়ন সমিতি প্যানেলের ৭ প্রার্থী জয়ী হয়েছে বলে জানানো হয়।
শেখ রবিউল আলমের নেতৃত্বাধীন প্যানেলের বিজয়ীরা হলেন, শেখ রবিউল আলম, মোঃ আবদুর রহমান কিনা, অ্যাডভোকেট আবু সেলিম রানা, ফজলে রাব্বি মোপাশা, কাজী লুৎফুন্নেছা, মোঃ আবদুল হামিদ চাকলাদার ইদুল, কবি কাসেদুজ্জামান সেলিম, এজেডএম সালেক স্বপন, এস নিয়াজ মোহাম্মদ, শেখ মকসিমুল বারী অপু, রওশন আরা রাশু, মোঃ আবদুর রাজ্জাক ও ডা. আবুল কালাম আজাদ লিটু।
অপরদিকে, ড. মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বাধীন প্যানেলের বিজয়ীরা হলেন, ড. মোস্তাফিজুর রহমান, সানোয়ার আলম খান দুলু, এমএ মতিন সিদ্দিকী, ইমদাদুল হক সাচ্চু, অধ্যক্ষ মুস্তাক হোসেন শিম্বা, অ্যাড. চুন্নু সিদ্দিকী ও অ্যাড. মোহাম্মদ ইসহক।এদিকে, গঠনতন্ত্র সংশোধন করার জন্য সদস্যদের মতামত নিতে হ্যাঁ ভোট ও না ভোট দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়। এতে সংশোধনের পক্ষে ১ হাজার ৯৯৭ জন হ্যাঁ ভোট এবং ১৬৭ জন না ভোট দিয়েছেন। আর হ্যাঁ ও না উভয় স্থানে টিক চিহ্ণ দেয়ায় ৩৭০ ভোট বাতিল করা হয়েছে।
অপরদিকে, প্রতিবারের মতো ভোট কেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কড়া নিরাপত্তায় ভোটাররা নির্বিঘ্নে ভোট প্রয়োগ করেন। ভোটাররা নির্ধারিত সময় ১০ টার আগেই ভোটার প্রদানের জন্য লাইনে দাঁড়ান। বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটারসহ প্রার্থীদের পরিবারের সদস্য, শুভানুধ্যায়ী ও শহরের সামাজিক, সাংস্কৃতিমনা মানুষের ক্রমশ ভিড় লক্ষ্য করা যায়। এক পর্যায়ে ভোটার-ননভোটারদের পদভারে সরগরম হয়ে ওঠে ইন্সটিটিউট আঙ্গিনা।
প্রার্থীদের কর্মী সমর্থকদের দেখা যায় তাদের নিজ নিজ ক্যাম্প থেকে ভোটারদের ভোটার নম্বর খুঁজে দিতে ও কোন কেন্দ্রে তারা ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন তার সন্ধান দিতে। এদিকে, একমাত্র স্বতন্ত্র প্রার্থী হাবিবুর রহমান রুবেলের সমর্থকদের দেখা যায় ভোটারদের গোলাপ ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাতে। এবারের নির্বাচনে জাল ভোট প্রতিরোধ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এছাড়া বার বার সতর্ক বাণী এবং সকলের দৃষ্টিতে আনতে প্রতিটি কেন্দ্রের প্রবেশদ্বারে এ সংক্রান্ত নোটিশ টানানো হয়।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: