১ ফেব, ২০১৫

খাতা কেলেঙ্কারীতে শার্শায় শিক্ষককে অব্যহতি

যশোরের শার্শায় খাতা কেলেঙ্কারীতে অভিযুক্ত শার্শা পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সহিদুলকে আসন্ন এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র সচিব পদ থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে।
শার্শা পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব ও প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলামকে কেন্দ্র সচিব পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে ২ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য এসএসসি পরীক্ষায় উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আব্দুর রশিদকে ওই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এটি এম শরিফুল আলম।
এটি এম শরিফুল আলম বলেন, ২ ডিসেম্বর শার্শা পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র সচিব শহিদুল ইসলামের হেফাজত থেকে ২০১৪ সালের জেএসসি পরীক্ষার অলিখিত মুল ও অতিরিক্ত উত্তরপত্র উদ্ধারের ঘটনা তদন্ত করতে এসে পূনঃরায় বিপুল পরিমণন জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার মূল খাতা ও উত্তর পত্র উদ্ধার হয়েছে।
২ডিসেম্বর শার্শা উপজেলা প্রশাসন গোপন সংবাদ পেয়ে শার্শা উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ও নির্বাহী ম্যাজিষ্টেট আরিফুজ্জামান ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ওয়াহিদুজ্জামান জেএসসি পরীক্ষার মুল খাতা ৩১৮টি, অতিরিক্ত খাতা ৩২৬৮টি ও ৭১২টি টপর্শিট জব্দ করে যশোর জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের নিকট একটি পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন পাঠানো হয় বলে জানান শরিফুল আলম।
যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রতিবেদন পাওয়ার পর ১১ ডিসেম্বর তিনি শিক্ষা বোর্ড মডেল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ড. মোস্তাফিজুর রহমানকে আহবায়ক এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের প্রধান মূল্যায়ন কর্মকর্তা মিজানুর রহমানকে সদস্য করে ২ সদস্যর তদন্ত টিম গঠন করে ১০ কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।যার স্বারক নং-পনি/মাধ্য/৩৬২/১০৫(৩)১ তাং-১১/১২/১৪।
এ ব্যাপারে যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর আলাউদ্দিন নিকট শার্শা পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র সচিবের হেফাজতে থাকা অলিখিত মুল খাতা উদ্ধারের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন,তদন্ত দল ২৭ জানুয়ারী তদন্ত করে পুরনরায় ঐকেন্দ্র থেকে জে এস সি ও এস এস এস সি পরীক্ষার অলিখিত প্রায় ৭ হাজার মূলখাতা উদ্ধার করেছে। আর এ কারনেই কেন্দ্র সচিব পদ থেকে তাকে  প্রাথমিক ভাবে অব্যহতি দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। চুড়ান্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর আইনানুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: