১ ফেব, ২০১৫

নার্সিং কোর্সে ভর্তিতে ব্যাপক অনিয়ম ও জালিয়াতি

নার্সিং কোর্সে চলতি শিক্ষাবর্ষে ব্যাপক অনিয়ম ও জালিয়াতির মত ঘটনা ঘটেছে । টেলিটক সিমের সাহায্য আবেদন করা হলেও সেখানে জালিয়াতি ঘটেছে ম্যানুয়ালি । চলতি বছরের জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে ক্লাস শুরুর  প্রথম সপ্তাহেই রংপুর নার্সিং কলেজে ১৫ শিক্ষার্থী সনাক্ত হয় জালিয়াতির মাধ্যমে তারা ভর্তি হয়েছেন। পরে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে দেশের অন্যান্য নার্সিং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে খোঁজ খবর শুরু করে সেবা পরিদপ্তরের কর্মকর্তারা ।

সেবা পরিদপ্তর ইতিমধ্যে মোট ৭৭৬ জন শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল সম্পন্ন করেছে যার মধ্যে বিএসসি নার্সিং কো¬র্সে ৪৯ জন, ডিপ্লোমা ইন নার্সিং কোর্সে ৫১৯ জন এবং ডিপ্লোমা ইন মিডওয়াইফারি কোর্সে ২০৮ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল করা হয়েছে।

খুলনা বিভাগে সবচেয়ে বেশি ভর্তি বাতিল হয়েছে যশোর জেলায় । যশোর জেলায় ৬৭ টি ভর্তি বাতিল করা হয়েছে । যশোর নার্সিং ইনস্টিটিউটে ডি¬প্লোমা ইন মিডওয়াইফারি কোর্সে ২৫ জন ভর্তি হয়েছিলেন। তাদের সকলের ভর্তি বাতিল করা হয়েছে। ডিপ্লোমা ইন নার্সিং সায়েন্সে ভর্তিকৃত ৮০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে মাত্র ৩৮ জন ঠিকে আছেন। বাকি ৪২ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল করা হয়েছে।নার্সিং প্রশিক্ষণের যাত্রার পর এটাই হচ্ছে সবচেয়ে বড় জালিয়াতি ।

খুলনা বিভাগে অন্যান্য প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান গুলোর মধ্যে খুলনা নার্সিং ইনস্টিটিউট থেকে ১ জন, বাগেরহাট নার্সিং ইনস্টিটিউট থেকে ৬ জন, সাতক্ষীরা নার্সিং ইনস্টিটিউট থেকে ১২ জন, ঝিনাইদহ নার্সিং ইনস্টিটিউট থেকে ২ জন , মাগুরা নার্সিং ইনস্টিটিউট থেকে ২৩ জন, কুষ্টিয়া নার্সিং ইনস্টিটিউট থেকে ৪৪ জন, চুয়াডাঙ্গানার্সিং ইনস্টিটিউট থেকে ৩৮ জন শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল করা হয়েছে। ভর্তি বাতিল সংক্রান্ত চিঠি সেবা পরিদপ্তর সংশ্লিষ্ট সকল প্রতিষ্ঠান প্রধানের কাছে প্রেরণ করেছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এ বিষয়ে যশোর নার্সিং ইনস্টিটিউটের ইনস্ট্রাক্টর ইনচার্জ সেলিনা ইয়াসমিন জানান, তিনি ভর্তি বাতিল সংক্রান্ত কোন চিঠি পাননি। কিন্তু মাগুরা নার্সিং ইনস্টিটিউটের ইনস্ট্রাক্টর ইনচার্জ আবু বক্কর  চিঠি পেয়েছেন বলে জানান। নির্দেশনা মতো ব্যবস্থাও গ্রহণ করেছেন।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (নার্সিং) মোশাররফ হোসেন জানান,  স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নির্দেশে একটি তদন্ত কমিটি গঠনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। ওই কমিটি তদন্ত করে জালিয়াতির সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে প্রতিবেদন দেয়ার পর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গিয়াস উদ্দিন আহমেদ বলেন, টেলিটক ম্যানুয়াললি কোনো কাজ করেনি। টেলিটক শুধু আবেদন গ্রহণ করে ট্র্যাক নম্বর পাঠিয়ে শিক্ষার্থীদের আবেদন করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। পরবর্তী সব প্রক্রিয়া সেবা পরিদপ্তর নিয়ন্ত্রণ করেছে। ভর্তি প্রক্রিয়ায় কোনো সমস্যার বিষয়েও কিছু জানানো হয়নি।


উল্লেখ্য, আবেদন গ্রহণ প্রক্রিয়া শেষে গত ৩ নভেম্বর বিএসসি নার্সিং, ৫ নভেম্বর ডিপ্লোমা ইন নার্সিং সায়েন্স এন্ড মিডওয়াইফারি ও ১০ নভেম্বর ডিপ্লোমা ইন মিডওয়াইফারি কোর্সে চুড়ান্ত ভাবে নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের রোল নম্বর প্রকাশ করে সেবা পরিদপ্তর। ফলাফলে বিএসসি নার্সিং কোর্সের  জন্যে ৭০০ জন, ডিপ্লোমা ইন নার্সিং-এ ২৫৮০ জন ও ডিপ্লোমা ইনডিডওয়াইফারি কোর্সের জন্যে ৫৫০ জন শিক্ষার্থীকেমেধাতালি¬কায় নির্বাচিত করা হয়। মেধা তালিকা ছাড়াও বিএসসি নার্সিং-এ ৫০৬ জন, ডিপ্লোমা নার্সিং-এ ১২৯২ জন ও ডিপ্লোমা ইন মিডওয়াইফারি কোর্সের জন্যে ২৬৮ জন অপেক্ষামান তালিকা প্রকাশ করা হয় ।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

1 টি মন্তব্য: