২৬ জানু, ২০১৫

সম্মেলন সফল করতে যশোর আ.লীগের বর্ধিত সভা

আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি আওয়ামী লীগের যশোর জেলা সম্মেলন সফলের লক্ষ্যে বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার দলীয় কার্যালয়ে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বর্ধিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য আলী রেজা রাজু। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন চাকলাদার।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জেলা পরিষদ প্রশাসক শাহ হাদীউজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি যশোর-১ আসনের এমপি শেখ আফিল উদ্দিন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটির নেতা যশোর-৩ আসনের এমপি কাজী নাবিল আহম্মদ, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. আলী রায়হান ও সাইফুজ্জামান পিকুল, সাংগঠনিক সম্পাদক যশোর-২ আসনের এমপি মনিরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম আফজাল হোসেন, ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক মোফাজ্জেল হোসেন খসরু, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড মোশাররফ হোসেন, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. আসাদুজ্জামান, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল খালেক, শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন কবীর কবু, শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক আসিফ উদ দ্দৌলা সরদার অলোক, বাঘারপাড়া আওয়ামী লীগের সভাপতি এমপি রণজিৎ কুমার রায়, অভয়নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক হুইপ শেখ আব্দুল ওহাব, চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম হাবিবুর রহমান প্রমুখ।

তবে এতে ডাকা হয়নি সর্বশেষ জাতীয় নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়া বিদ্রোহী নেতাদের। বিনা আমন্ত্রণে একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হাজির হলেও তাকে বক্তব্য দানের সুযোগ দেয়া হয়নি।

বর্ধিত সভায় আমন্ত্রণ না পাওয়া এসব নেতাদের তালিকায় রয়েছেন- যশোর-৫ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক স্বপন ভট্টাচার্য, সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম ও সাবেক হুইপ দলের অভয়নগর উপজেলা সভাপতি অধ্যক্ষ শেখ আব্দুল ওহাব। তারা তিনজনই বিগত সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে যশোরের বিভিন্ন আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন।

এদিকে, বিগত নির্বাচনে স্বতস্ত্রপ্রার্থী হওয়া বাকি দু’নেতা সভায় যোগ না দিলেও সভা চলাকালে দলীয় কার্যালয়ে হাজির হন সাবেক হুইপ অধ্যক্ষ শেখ আব্দুল ওহাব। কিন্তু তাকে বক্তব্য দানের সুযোগ না দেয়ায় কিছুসময পর তিনি দলীয় কার্যালয় ত্যাগ করেন।

এ ব্যাপারে জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মীর জহুরুল ইসলাম জানান, দলের কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে বিগত নির্বাচনে যারা প্রার্থী হয়েছিলেন তাদের আপাতত দলীয় কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত না রাখার নির্দেশনা রয়েছে। সে কারণে বর্ধিত সভায় বেশ কয়েকজন নেতাকে ডাকা হয়নি। তবে সাবেক হুইপ ওহাবের সভায় আসা প্রসঙ্গে তিনি দাবি করেন, তিনি দলীয় কার্যালয়ে এসে নেতাকর্মীদের সঙ্গে কুশলাদি বিনিময় করে চলে যান। ফলে তাকে বক্তব্য দেয়ার সুযোগ দেয়া, না দেয়ার প্রশ্ন ওঠেনা।

দপ্তর সম্পাদক মীর জহুরুল ইসলাম আরও বলেন, সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম থাকবেন। এছাড়া যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি ও জাহাঙ্গীর কবির নানক এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক এমপি, বাহাউদ্দিন নাসিমসহ কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা সম্মেলনে উপস্থিত থাকবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: