৭ জানু, ২০১৫

অর্থনৈতিক উন্নয়ন সহজ ও যাতায়াত বিঘ্নিত ॥ খুলনা-সাতক্ষীরা, যশোর-কালিগঞ্জ সড়কের ভঙ্গুর দশা

খুলনা, সাতক্ষীরা সড়ক দেশের দক্ষিণাঞ্চলের লাখ লাখ মানুষের যাতায়াত এবং যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম হিসেবে পরিচিত। খুলনা সাতক্ষীরার পাশাপাশি সাতক্ষীরা কালিগঞ্জ-ভেটখালী সড়ক যাতায়াতের অন্যতম মাধ্যম। সাতক্ষীরা টু ভোমরা সড়ক কেবল যাতায়াতের জন্যই যথেষ্ট নয়, দেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকা শক্তি রাজস্ব উপার্জনের অন্যতম ক্ষেত্র হিসেবে বিবেচিত হওয়া ভোমরা স্থল বন্দর। উল্লেখিত সড়ক গুলোর পাশাপাশি সাতক্ষীরার অভ্যন্তরে বহু সংখ্যক সংযোগ সড়ক যাতায়াত এবং যোগাযোগ ব্যবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। দেশের দক্ষিণাঞ্চলের যাতায়াত এবং অর্থনৈতিক ভাবে সাশ্রয় না হওয়ার কারণ সড়ক গুলোর কোথাও কোথাও শীর্ণ, জীর্ণ এবং ভঙ্গুর অবস্থা। সড়কগুলোর মেরামত, পরবর্তি যাতায়াতের ক্ষেত্র সহজ এবং নিবিঘœ করণের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কেবল উদাসিন নয়, চরম দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিচ্ছে। দেশের,বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের অন্যতম মাধ্যম সাদা সোনা খ্যাত চিংড়ী বাজারজাত করনের ক্ষেত্রে সাতক্ষীরা-কালিগঞ্জ, সাতক্ষীরা-যশোর, খুলনা-সাতক্ষীরা সড়ক ব্যবহৃত হয়। উল্লেখিত সড়ক গুলোর কোথাও কোথাও এমন ভগ্নদশা যে হিমায়িত চিংড়ী সময় মত নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌছাতে ব্যর্থ হয়। পাশাপাশি সড়কের জীর্ণতার কারণ হেতু যানবাহন ক্ষতিগ্রস্থ হয় বলে ভুক্তভোগীদের অভিযোগ। কেবল হিমায়িত চিংড়ী পরিবহন বা বাজারজাত করন নয়, সাতক্ষীরা সহ আশপাশের এলাকায় উৎপাদিত শাকসবজি, রবিশষ্য রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় নিতে জীর্ণ সড়কের কারণ হেতু সময়ক্ষেপণের পাশাপাশি পরিবহণ খরচ বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার কারণে উৎপাদনকারী পাইকার, খুচরা ব্যবসায়ী সহ কৃষকরা উৎপাদিত পণ্যের যথাযথ মূল্য হতে বঞ্চিত হচ্ছে। সাতক্ষীরা-কালিগঞ্জ, খুলনা-সাতক্ষীরা, যশোর-সাতক্ষীরা সড়ক এর যথাযথ উন্নয়ন না ঘটায় কেবল যাতায়াত যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ লভ্যতা হচ্ছে না তা নয় বা পন্য পরিবহণ ব্যয় বহুল সেটা যেমন যথাযথ অনুরূপ সড়ক ব্যবস্থায় ভঙ্গুর এবং খানা খোদক এর অবস্থান থাকায় সড়ক দূর্ঘটনার মাত্রাও বেড়ে চলেছে। দেশের অন্যতম আলোচিত স্থল বন্দর ভোমরার অবস্থান সাতক্ষীরায়। আর আমদানী রপ্তানীর ক্ষেত্রে অন্যবন্দর অপেক্ষা ভোমরা কলিকাতা হতে অপেক্ষাকৃত কম দূরত্বে হওয়ায় ব্যবসায়ী মহল দিনে দিনে ভোমরা মুখি হচ্ছে। কিন্তু এটাই বাস্তবতা যে ভোমরা স্থল বন্দরগামী সড়ক টি এখনও পর্যন্ত ফিরে পাইনি। সড়কটির নির্মাণ কাজ চলছে মন্থর গতিতে। অপার সম্ভাবনাময় এ বন্দরটি অধিকতর উন্নয়ন এবং উন্নতির শিখরে আরোহন করতো যদি সাতক্ষীরা টু ভোমরা বন্দর সড়কটি যুগোপযোগী এবং উন্নত হত। সড়ক ও জলপথ বিভাগের আওতাধীন সড়ক গুলোর দুরাবস্থা ব্যবসায়ী মহল, যাত্রী সাধারণ সহ জেলার সচেতন মহলকে কেবল বিস্মিত করছে না উদ্বিগ্ন করে তুলছে। সাতক্ষীরা শহরের প্রাণকেন্দ্রের বিভিন্ন এলাকার সড়কে খানা খন্দক সৃষ্টি হয়েছে। জনসাধারণকে যাতায়াতে সহজ লভ্যতার ক্ষেত্রে, অর্থনৈতিক উন্নয়নে, অভ্যন্তরীন রাজস্ব বৃদ্ধির ক্ষেত্রে বিশেষ করে ভোমরা বন্দর এবং সুন্দরবনের যাতায়াত সহজলভ্যতার ক্ষেত্রে সড়কগুলোকে যুযোপযোগী এবং জীর্ণতা মুক্ত করে সুনিপুন করনের ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষ কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন এবং সংশ্লিষ্ট বিভাগ দায়িত্বহীনতার পরিবর্তে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেবেন এমন প্রত্যাশা সচেতন মহলের।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: