২৮ জানু, ২০১৫

যশোর এমএম কলেছে ছাত্রলীগের ভাঙচুর

অনার্স তৃতীয় বর্ষের ব্যবহারিক পরীক্ষায় নম্বার কম দেয়ার অভিযোগ তুলে যশোর সরকারি এমএম কলেজে ভাঙচুর করেছেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।তারা শ্রেণীকক্ষের জানালা, ল্যাবের জিনিসপত্র ও ফুলের টব ভাঙচুর করেছে।
মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কলেজের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগে এ ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে।
প্রত্যক্ষদর্শী কলেজের এমএলএসএস সাজ্জাদ হোসেন জানান, সকালে ২৫/৩০ জন শিক্ষার্থী পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগে এসে আচমকা রুমের জানালার গ্লাস ও ল্যাবের বিভিন্ন জিনিসপত্র ভাঙচুর করে। তাদের অভিযোগ সদ্য প্রকাশিত অনার্স তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষার ফলাফলে শিক্ষকরা ব্যবহারিক পরীক্ষায় ১শ’ নম্বরের মধ্যে ৬০-৬৫ নম্বরের বেশি দেয়নি। যে কারণে তাদের রেজাল্ট ভাল হয়নি।
শিক্ষার্থীরা জানান, শিক্ষকরা তাদের পরীক্ষায় যথাযথ মূল্যায়ণ না করে ইচ্ছেমতো মনগড়া নম্বর দিয়েছেন। ১শ নম্বরের ব্যবহারি পরীক্ষা চার দিনে অনুষ্ঠিত হলেও দুদিন বাইরে কলেজ থেকে আসা বহিঃপরীক্ষক উপস্থিত ছিলেন না। আর অন্য দুই দিন কলেজের শিক্ষকরাই পরীক্ষা নিয়েছেন। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য; নিজ কলেজের শিক্ষকরা যে দুদিন পরীক্ষা নিয়েছিলেন সেই দুদিনের পরীক্ষায় সবচেয়ে কম নম্বর দেয়া হয়েছে।
প্রকাশিত ফলাফলে সবারই এমন চিত্র হওয়ায় তারা কলেজে ভাঙচুর করেন। এ বিষয়ে কলেজের উপাধ্যক্ষ শফিউল ইসলাম ও পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান আব্দুর রহমান জানান, ব্যবহারিক পরীক্ষায় অন্য কলেজ থেকে একজন শিক্ষক এক্সটারনাল হয়ে আসেন। তিনিই মূলত নম্বর দেয়ার বিষয়ে প্রধান ভূমিকায় থাকেন। ফলে এক্ষেত্রে কলেজের শিক্ষকদের কিছু করা থাকে না। কিন্তু শিক্ষার্থীরা ভুল বুঝে ভাঙচুর করেছে।
ঘটনাস্থলে থাকা যশোর কোতোয়ালি থানার এসআই আসাদুল ইসলাম শাকিল জানান, বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা ব্যাপক ভাঙচুর করেছে। পুলিশ পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করে।

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: